‘গুরুতর’ তিন অভিযোগে অপুকে তালাক

সোমবার বিকালে খবর ছড়িয়ে পড়ে, চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাসকে তালাকের নোটিশ পাঠিয়েছেন তার স্বামী শাকিব খান। বিষয়টির সত্যতা জানতে বিকালেই যোগাযোগ করা হয় শাকিবের পরিবারের সঙ্গে। নায়কের পরিবারিক একটি সূত্র জানায়, সিরাজুল ইসলাম নামের প্রবীণ এক আইনজীবীর মাধ্যমে অপুকে তালাকের নোটিশ পাঠিয়েছেন শাকিব।

পরে এ বিষয়ে ওই আইনজীবীর বয়ান থেকে জানা যায়, অপুর বিরুদ্ধে গুরুতর তিনটি অভিযোগ এনে তালাকনামা পাঠিয়েছেন শাকিব। তিনি বলেন, ‘ধর্মান্তরিত হয়ে শাকিব খানকে বিয়ে করেছিলেন অপু বিশ্বাস। কথা ছিল, তিনি মুসলিম রীতিনীতি মেনে চলবেন ও গৃহিনী হয়ে থাকবেন। কিন্তু অপু বিশ্বাস সে কথা রাখেননি।’ এমনকী তিনি স্বামী শাকিব খানের কোনো নির্দেশ মেনে চলেন না বলেও জানান ওই আইনজীবী।

দ্বিতীয় অভিযোগ, গত ১৭ নভেম্বর ছেলে আব্রাম খান জয়কে কাজের মেয়ে শেলীর কাছে রেখে বাইরে থেকে তালা দিয়ে কলকাতায় যান অপু। এমন খবর পেয়ে ওইদিনই ছেলেকে দেখতে অপুর নিকেতনের বাসায় ছুটে যান শাকিব। কিন্তু তালাবদ্ধ থাকায় দেখা করতে পারেনি ছেলে জয়ের সঙ্গে। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে ছেলেকে উদ্ধারে থানায় জিডিও করেন শাকিব খান।

তৃতীয় অভিযোগ, কলকাতা থেকে ফিরে এসে অপু জানান, চিকিৎসা করাতে কলকাতা গিয়েছিলেন তিনি। তবে এই কথা নাকি মানতে নারাজ স্বামী শাকিব খান। আইনজীবীর মাধ্যমে তিনি অভিযোগ করেন, অপু নাকি ছেলে জয়কে কাজের মেয়ের কাছে তালাবদ্ধ অবস্থায় রেখে কলকাতায় কথিত বয়ফ্রেন্ড নিয়ে ঘুরতে গিয়েছিলেন। এমন অভিযোগের ব্যাপারে অবশ্য অপুর পক্ষ থেকে এখনও কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য, গত ২২ নভেম্বর সন্ধ্যায় শাকিব খান আইনজীবী সিরাজুল ইসলামের চেম্বারে যান। তিনি স্ত্রী অপু বিশ্বাসকে তালাক দেয়ার ব্যাপারে এই আইনজীবীর কাছে আইনগত সহায়তা চান। এরপর শাকিব খানের পক্ষে আইনজীবী শেখ সিরাজুল ইসলামের অফিস থেকে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন মেয়র কার্যালয়, অপু বিশ্বাসের ঢাকার নিকেতনের বাসা এবং বগুড়ার ঠিকানায় এই তালাকের নোটিশ পাঠানো হয়। তবে এই তালাক কার্যকর হবে নোটিশ পাঠানোর তারিখ থেকে তিন মাস পর।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Pin It on Pinterest